OdishaSipakuda - Chilka

Jul,2019
Post Your Comment Back To Oxygen
Address: Sipakuda, Odisha 752011
How to go: It is better to book cab from Bhubneswar to visit the place. You have to follow Cuttak-Puri bypass and the approx distance is 100 km. If you are coming for the first time use GPRS in your mobile. It is pretty simple to follow navigation.
Pros:
  • Excellent road condition
  • Hotel for food and shops are available
  • Less crowd than other side of Chilka
Cons:
  • No local communication, you have to depend only private or hired car.
  • Less hotels for staying
What to visit ?
  • Chilka Dolphin point
  • Chilka Sea mouth
  • Crab island (not at all worthy, you can skip it)
Company: Family and friends
Minimum day/time to visit: 1 full day
Locality: Village
Expenses: 2000 max for a small group
More Information: সিপাকুডা - চিল্কা।
নামটা ছোট হলেও গুরুত্ব বিশাল। রম্ভা, বরকুল, সাতপারা, এই ৩টে পয়েন্টের মধ্যে দুটোয় ঘোরা হলো এটা নিয়ে। আগের বারের রম্ভা মুগ্ধ করেছিল সূর্যদয়, সূর্যাস্ত, ব্রেকফাস্ট আইল্যান্ড ইত্যাদি। এইবারে ঠি ক করলাম সাতপারা কভার করবো। ইচ্ছা ছিল মোহনা এবং ডলফিন দেখার। সবাই মিলে একটু ভেবেচিন্তে নিলাম সবকিছু, তারপর জুমকারে করে রওনা দিলাম ভুবনেশ্বর থেকে। ভুবনেশ্বর থেকে সাতপারা ১২০ কিমি। মাখন রাস্তা দিয়ে চলতে চলতে চারপাশের প্রকৃতি মুদ্ধ করলো। ফনিতে ওড়িশা তচনচ্ করলেও সেই দৃশ্য যে এত মধুর হবে সেটা ভাবতে পারিনি। সেটা ছবি গুলো দেখলেই বুঝতে পারবে। অনুভুতিটা ভুল ভাবে নেবেন না।

যাই হোক, সাতপারা যেতে যেতে পরিচয় হলো জিতু নামে একজনের সাথে। সে বললো আমাদের সাতপারা যাওয়ার কি দরকার যেখানে আমরা ডলফিন পয়েন্ট, ক্র্যাব আইল্যান্ড ও সি মাউথ(মোহনা) কভার করতে চাই। সাতপারা কিন্তু সি মাউথ কভার করায় না কারন দুরত্বটা অনেকটাই বেশী। হয়তো করা যাবে কিন্তু অনেক বেশী পরবে। এটাও বললো সাতপারা থেকে সিপাকুডা ১০ কিমি আগে, সেখান থেকেও বোটিং হয় যেটা আমাদের ৩ টে জায়গা কভার করবে। টাকার কথায় রাজি হয়ে মনস্থির করলাম এর সাথেই যাবো। সে কথা বলিয়ে দিলো জগন বলে একটি ছেলের সাথে। তারপর গন্তব্যের ১৫ কিমি আগে থেকে জগন বাইকে করে আমাদের পথ প্রদর্শন করলো ঘাট অবদি। আমি গাড়ি থেকে নেমে চড়ে বসলাম জগনের বাইকে। অসাধারন শেষ ৫ কিমি পথ চলতে চলতে অনেক কথা বললাম জগনের সাথে। ও নিয়ে গেলো বোটিং পয়েন্টে।

শুরু হলো এক অদ্ভুত বয়ষ্ক চালকের সাথে নৌকাবিহার। না কথা বলে, না কথার উত্তর দেয়, না কথা বোঝে। বুঝলাম জীবন যুদ্ধে ক্লান্ত এই মানুষকে আর বিরক্ত করা ঠি ক নয়। শুরু হলো নৌকা চলা। স্বাভাবিক ভাবেই প্রথম দিকে একটু ভালো লাগলেও পরের দিকগুলো মনে হচ্ছিল কত তাড়াতাড়ি একএকটা জায়গা ঘুরে শেষ করবো।

প্রথমেই গেলাম ক্র্যাব আইল্যান্ড । মনে রাখবেন জীবনে কখোনো যাবেন না। ওর খেতে বেশী কাকড়া আপনি মোহনায় দেখতে পাবেন। আর ঐ ঝিনুক ভেঙে মুক্তো বের করার গল্প নয় নাই বললাম।

এরপর চলে গেলাম চিল্কাক্ষ্যাত শুশুক দেখতে। বেশ অনেকটা সময় লাগলো যেতে। সাতপারা OTDC পার করেও অনেক দুর। আসলে ক্র্যাব আইল্যান্ড থেকে ডানদিকে ১.৩০ ঘন্টা লাগে ডলফিন পয়েন্টে যেতে। সত্যি বলছি ২৫ বারেরও বেশী ডলফিন দেখেছি। এমনকি ৩ টে একসাথে পাশাপাশিও দেখেছি। মন ভরে গেছে।

এরপর গেলাম সোজা মোহনা। সময় লাগলো ২ ঘন্টা, কারন সেখানে যেতে গেলে স্টার্টিং পয়েন্টের কাছ দিয়ে বামদিকে অনেকটা যাতে হয়। মোহনায় পৌছে মন ভরে গেলো রঙের বাহার দেখে। গরম ছিল খুবই কিন্তু হাল্কা ঠান্ডা হাওয়া মন ভরিয়ে দিচ্ছিল। অবাক হলাম মোহনায় হলুদ কাকড়াদের দেখে। অবাক করলো সমুদ্রের নীল সবুজ তুঁতে আসমানীর খেলা। দু:খ পেলাম মোহনায় হেটে যেতে না পারায়। কারন মোহনা দিন দিন আমাদের থেকে দুরে সরে যাচ্ছে। কিন্তু কেউ যদি শুধু মোহনায় যায় তবে সে অনায়াসে ঘুরে দেখে আসতে পারবে। শেষ হলো আমাদের চিল্কা ভ্রমন ৪.৩০ ঘন্টায়।

ইতিমধ্যেই ক্ষিদে পাওয়াতে ঢুকলাম বোটিং কমপ্লেক্সের নিকটবর্তি চিল্কা হটেলে। আগে থেকে অর্ডার করেছিলাম কিছু খাবার। বলি তাহলে কি কি খেয়েছিলাম। ভাত, ডাল, স্যালাড, মিক্স্ড সবজী, চিল্কার পমফ্রেট, চিল্কার ভেটকী, চিল্কার বাগদা চিংড়ি। সত্যি বলছি সব খাবার অসাধারন। যদিও ৫ জনের বিল হয়েছিল ১৫০০ র মত। কিন্তু অবশ্যই বলবো খেয়ে দেখবেন এই হোটেল থেকে।

কিছু কথা:

  1. শোনো বাপু, শুশুকদের সাথে আমাদের কন্ট্রাক্ট ছিল না। ওদের ইচ্ছা ওরা দেখা দিয়েছে
  2. মোহনার ইচ্ছা হয়েছে দুরে চলে গেছে। জোর করে তো কাউকে ধরে রাখা যায় না
  3. নৌকার ভট ভট শব্দটা ওদের শিতকার, অত্যাচারের সময়তো আমরা ভাবি না
  4. এত বড় একটা হ্রদের চারদিকে জলই থাকবে, সপিং কমপ্লেক্স নয়


জিতু (বোট) 070083 93705
জগন (বোট) 0824-9641677
বোটভাড়া ২৫০০ পরেছে জুলাই ২০১৯
মানস (চিল্কা হোটেল) 093480 79141
travel diary
On the way to Sipakuda
travel diary
Even after being destroyed by Feni, it looks so amazing.
travel diary
Ultimate nature
travel diary
King of the island
travel diary
Peace of eyes
travel diary
Way to heaven
travel diary
With Jeetu
travel diary
With Jagan
travel diary
Yellow crab towards sea mouth
travel diary
The bone of whale.
travel diary
Friendship
travel diary
The incredible Dolphin
travel diary
Nature reloaded

All Comments

  • No Comments Available

Top